ই-কমার্সে প্রতারণা রোধে কেন্দ্রীয় অভিযোগ প্ল্যাটফর্ম চালু

ই-কমার্সে প্রতারণা রোধে কেন্দ্রীয় অভিযোগ প্ল্যাটফর্ম চালু

ই-কমার্স খাতের প্রতারণা রোধে সেন্ট্রাল কমপ্লেইন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (সিসিএমএস) প্ল্যাটফর্ম চালু করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন স্মার্ট বাংলাদেশের দিকে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের মানুষ এখন ডিজিটাল সুবিধা ভোগ করছে, ই-কমার্সের সুবিধা ভোগ করছে। ই-কমার্সের পরিধি অনেক বেড়েছে, সঙ্গে সঙ্গে ডিজিটাল প্রতারণাও বেড়েছে। ই-কমার্সে প্রতারণা রোধে আমাদের সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।’

গতকাল রোববার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এই উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।

সেন্ট্রাল কমপ্লেইন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (সিসিএমএস) একটি কেন্দ্রীয় প্ল্যাটফর্ম, যেখানে ভোক্তা ই-কমার্স-সংক্রান্ত যেকোনো যৌক্তিক অভিযোগ সহজে উপস্থাপন করে প্রতিকার পেতে পারবেন। প্ল্যাটফর্মটি ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, ই-কমার্স স্টেকহোল্ডার, নথি সিস্টেম এবং বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রি নিয়ন্ত্রক সংস্থার সঙ্গে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সমন্বয় করার মাধ্যমে পরিচালিত হবে। সিসিএমএস বর্তমানে সবচেয়ে দ্রুত বিকাশমান ই-কমার্স ইন্ডাস্ট্রির গ্রাহকসেবা নিশ্চিতকরণে এবং ভোক্তা অধিকার সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হিসেবে ভূমিকা রাখবে।

অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ই-কমার্স খাতের প্রতারণা রোধে সিসিএমএস প্ল্যাটফর্ম চালু করা হলো। আশা করা হচ্ছে, ই-কমার্সের সুফল পাওয়া যাবে। এটি ভোক্তা, নিয়ন্ত্রক সমন্বয়ক এবং ই-কমার্স স্টেকহোল্ডারদের মাঝে সেতু হিসেবে কাজ করবে।

কভিডকালে ই-কমার্স গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে বলে উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষ ঘরে বসে নিজের প্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে পেরেছেন, এখনও পারছেন। ই-কমার্সের পরিধি এখন অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী, ই-কমার্সের জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। প্রয়োজন থেকেই আবিষ্কার হয়। কভিডকালে আমাদের ই-কমার্সের খুবই প্রয়োজন ছিল। মানুষ ই-কমার্সের সেবা নিয়েছে, এর চাহিদাও অনেক বেড়েছে। ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম এখন মানুষের জীবনযাত্রাকে সহজ করেছে এবং মান বদলে দিয়েছে। দেশের মানুষ বিভিন্ন সেক্টরে ডিজিটাল সুবিধা ভোগ করছে। ৯৯৯ নম্বরের সুবিধা এখন সবাই ভোগ করছে। ডিজিটাল হাটে পশু কেনাবেচা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ২০৪১ সালে স্মার্ট উন্নত বাংলাদেশ গড়তে আমরা সম্মিলিতভাবে কাজ করছি।

অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এবং ডব্লিউটিও সেলের মহাপরিচালক এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ই-কমার্স সেলের প্রধান সমন্বয়কারী মো. হাফিজুর রহমান, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম শফিকুজ্জামান ও ই-কমার্স অ্যাসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট শমী কায়সার বক্তব্য দেন। 

এর আগে বাণিজ্যমন্ত্রী ভারতের বেঙ্গল চেম্বারের প্রেসিডেন্ট সুবীর চক্রবর্তীর নেতৃত্বে আগত ১০ সদস্যের একটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বিষয়ে মতবিনিময় করেন।

Leave a Reply