দেশে ‘ফারাজ’ সিনেমার প্রচার-প্রদর্শনে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

দেশে ‘ফারাজ’ সিনেমার প্রচার-প্রদর্শনে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজনের জঙ্গি হামলার ঘটনার প্রেক্ষাপট নিয়ে নির্মিত ভারতীয় সিনেমা ‘ফারাজ’ বাংলাদেশের সিনেমা হল ও অনলাইন প্ল্যাটফর্মে মুক্তি বন্ধে অবিলম্বে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম, টেলিভিশন ও সিনেমা হলে ‘ফারাজ’ সিনেমার প্রদর্শন ও সম্প্রচার বন্ধে সরকারের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

হলি আর্টিজান হামলায় নিহত অবিন্তা কবিরের মা রুবা আহমেদের করা এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার বিচারপতি খসরুজ্জামান ও বিচারপতি ইকবাল কবির লিটনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এর আগে বিচারকরা তাদের চেম্বার কক্ষে পিটিশনের বিষয়বস্তু সম্পর্কিত চলচ্চিত্রের প্রাসঙ্গিক অংশগুলি দেখেন। রিট আবেদনকারীর আইনজীবী আহসানুল করিম, নাহিদ সুলতানা যুঁথি এবং ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী রোকনউদ্দিন মাহমুদ।

আহসানুল করিম জানান, সিনেমা হলে সিনেমা দেখানোর জন্য সেন্সর বোর্ডের সিদ্ধান্ত প্রয়োজন হওয়ায় এ বিষয়ে হাইকোর্ট কিছু বলেননি। ফারাজ সিনেমা হলে প্রদর্শিত হলে পরবর্তী আদেশের জন্য আমরা হাইকোর্টে আবেদন করব।

রিট আবেদনের বরাত দিয়ে আহসানুল করিম বলেন, ভারতীয় সিনেমাটিতে অবিন্তার পোশাক পরিচ্ছেদ এমনভাবে দেখানো হয়েছে আমাদের সভ্য সমাজে যারা শিক্ষিত পরিবার তারা এসব পোশাক কখনও পরিধান করে না। এখানে মেয়েটিকে চারিত্রিকভাবে অবনমিত করা হয়েছে। এ ছাড়া দেশের র‌্যাব পুলিশকে এখানে ব্যর্থ দেখানো হয়েছে। এসব কারণে বাংলাদেশের কোনো ফ্ল্যাটফর্মে সিনেমাটা আসা উচিত না, তাই রিট করা হয়েছে।

২০১৬ সালের ১ জুলাই হলি আর্টিসানে জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় নিহত হন ২০ বছর বয়সী বাংলাদেশি তরুণ ফারাজ আহমেদ। ফারাজ যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়ায় এমরি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। ছুটি কাটাতে দেশে এসেছিলেন। তাকে নিয়ে একটি সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা এসেছে বলিউড থেকে। ফারাজের নামেই হবে সিনেমাটি। এখানে ফারাজের চরিত্রে অভিনয় করবেন কারিনা কাপুরের চাচাতো ভাই জাহান কাপুর৷ এ সিনেমা দিয়েই তার অভিষেক হবার কথা বলিউডে।

গত ২ ফেব্রুয়ারি ‘ফারাজ’ নামে বলিউডে সিনেমা নির্মাণ বন্ধের জন্য বাংলাদেশের ‘অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন’ এর পক্ষে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছে ল ফার্ম ‘লিগ্যাল কাউন্সেল’।

এর আগে ২০২১ সালের ৯ আগস্ট সিনেমাটির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান টি-সিরিজ, পরিচালক হানসাল মেহেতা এবং অনুভব সিনহাকে নোটিশটি পাঠানো হয়েছে।

আইনজীবী মিতি সানজানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ আইনি নোটিশ প্রেরণের বিষয়টি জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিটিতে বলা হয়, হলি আর্টিসানের হামলায় মিসেস রুবা আহমেদ তার একমাত্র সন্তান অবিন্তা কবিরকে হারিয়েছেন। ওই ঘটনা সবার কাছে নির্মম হত্যাকাণ্ড হলেও রুবা আহমেদের কাছে এটি একটি নির্মম সত্য। তিনি চান না এ ঘটনা থেকে কোনো কন্টেন্ট নির্মাণ হোক। কারণ, এটি তাকে তার মেয়ের কষ্টদায়ক স্মৃতিকে বারবার জাগিয়ে তুলবে। এটি বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করবে। তাছাড়া সিনেমা নির্মাণের আগে ভুক্তভোগী পরিবারের কাছ থেকেও কোনো ধরনের অনুমতি নেওয়া হয়নি। এ নোটিশের প্রেক্ষিতে কোনো জবাব আসেনি এখনো বলিউড থেকে।

ফারাজ সিনেমার একটি ট্রেলার মুক্তি পেয়েছে। সিনেমাটি বন্ধে নির্মাতাদের কাছে আইনি নোটিশও পাঠিয়েছিলেন রুবা। তিনি বলেন, ২০১৯ সালে আমি সিনেমাটি সম্পর্কে জানতে পারি। ২০২১ সালের ৫ আগস্ট সিনেমার পোস্টার আমার হাতে আসে। নির্মাতাদের কাছে আমি আইনি নোটিশও পাঠিয়েছিলাম। কোর্টের আদেশ থাকার পরও তারা আমাকে এখন পর্যন্ত মুভির কোনো স্ক্রিপ্ট বা সিনেমাটি দেখায়নি।

২০২২ সালের ৩০ অক্টোবর লন্ডনের ফিল্ম ফেস্টিভালে ফারাজ সিনেমাটির স্ক্রিনিং করানো হয়। সেখানে রুবা আহমেদের এক প্রতিনিধি পুরো সিনেমার ডিটিইলিং দেখেছেন। তিনি দেশে ফিরে রুবার আইনজীবীকে বলেছেন, সিনেমায় অবিন্তার চরিত্রের নাম আয়শা।

রুবা বলেন, সিনেমার নাম ফারজ হওয়ায় একজনকে হিরো সাজানো হয়েছে। আর বাকিদের বোঝানো হয়েছে তারা ‘ভিলেন’। তাদের বাঁচাতে গিয়ে ফারাজ নিহত হয়েছে। আমার মেয়ে কারও জন্য জীবন দেয়নি। সেখানে কি ঘটেছিল আমরা কেউ জানি না। আর একজন ভারতীয় হয়ে বাঙালিদের তারা কেন যাচাই করবে? তারা এ সিনেমা বানানোর সময় কোনো পরিবারের সঙ্গে কথা বলেনি। আমি মা হয়ে কীভাবে চাইবো, আমার মেয়ের মৃত্যুকে বড় পর্দায় দেখে অন্য কেউ বিনোদন নেবে? মেয়ের জীবন কীভাবে চলে গেছে, একজন মা হয়ে কী কারও পক্ষে তা দেখা সম্ভব? এতে আমার মেয়ের ভাবমূর্তি যেমন নষ্ট হচ্ছে, সঙ্গে দেশের ভাবমূর্তিও নষ্ট হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, আমার মেয়ে সাধারণ জনতা। আমার মেয়ে কোনো পণ্য নয়। ও অবিন্তা কবির, আমার মেয়ে। আপনারা কেউ ওকে জানতেন না। আপনারা কী আসলেই অবিন্তা কবিরকে চিনতেন? যদি ও ২০১৬ সালে মারা না যেত? চিনতেন না। আপনার ওর (অবিন্তা) নামটা জেনেছেন কারণ, শি পাসড ওয়ে দ্যাট নাইট।

ফারাজ সিনেমাটি নিয়ে অবিন্তা কবিরের পরিবারের আপত্তি আছে বলে জানানো হয় ফাউন্ডেশন থেকে। সিনেমায় অবিন্তা কবির ও তার পরিবারের সদস্যদের চরিত্র উপস্থাপন করা হবে। এ নিয়ে পরিবারের সদস্যরা বিব্রত। হলি আর্টিসানের হামলার ঘটনার পর তারা আড়ালে থাকতেন অবিন্তার পরিবার। এ প্রথম তারা গণমাধ্যমের সামনে এলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ইমোরি ইউনিভার্সিটির অক্সফোর্ড কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন অবিন্তা কবির। ২০১৬ সালের জুন মাসে দেশে ফিরেছিলেন তিনি। গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে খেতে গিয়েছিলেন তিনি। সেদিন জঙ্গি হামলায় ফারাজের সঙ্গে তিনিও নিহত হন। তার স্মৃতি ধরে রাখতে ২০১৭ সালের ৪ মার্চ প্রতিষ্ঠা করা হয় ‘অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন’।

Leave a Reply