পর্ষদ সভার তারিখ জানিয়েছে এসএস স্টিল ও ওইমেক্স ইলেকট্রোড

পর্ষদ সভার তারিখ জানিয়েছে এসএস স্টিল ও ওইমেক্স ইলেকট্রোড

পরিচালনা পর্ষদ সভার তারিখ ঘোষণা করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি এসএস স্টিল লিমিটেড এবং ওইমেক্স ইলেট্রোড লিমিটেড। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এসএস স্টিল: কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের সভা আগামী ৫ মার্চ সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ২০২২ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর সমাপ্ত প্রথম এবং ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হবে।

২০২২ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাবছরের জন্য শুধু সাধারণ শেয়ারহোল্ডোরদের জন্য ২ শতাংশ নগদ এবং সব শেয়ারহোল্ডারের জন্য ৮ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৮৭ পয়সা। আর ২০২২ সালের ৩০ জুন শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২৪ টাকা ৫ পয়সা। এছাড়া আলোচিত সময়ে তাদের শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে ৪ টাকা ৪ পয়সা (ঘাটতি)। এর আগের দুই হিসাববছর অর্থাৎ ২০২১ ও ২০২০ সালেও কোম্পানিটি শেয়ারহোল্ডারদের দুই শতাংশ নগদ ও ৮ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছিল। পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালে ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছিল। ২০২১ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে দুই টাকা ৩১ পয়সা। ৩০ জুন, ২০২১ শেয়ারপ্রতি নেট সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২৫ টাকা ৫৮ পয়সা।

উল্লেখ্য, প্রকৌশল খাতের কোম্পানিটি ২০১৯ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। তাদের ৫০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৩২৮ কোটি ৬৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা। এসএস স্টিলের রিজার্ভে আছে ৩৪৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা। কোম্পানির মোট ৩২ কোটি ৮৬ লাখ ৩৩ হাজার ২০০ শেয়ার রয়েছে। ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যমতে, কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে ৩১ দশমিক ৭৯ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর কাছে ১১ দশমিক ৩১ শতাংশ এবং বাকি ৫৬ দশমিক ৯০ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে।

ওইমেক্স ইলেকট্রোড: কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের সভা আগামী ৫ মার্চ সন্ধ্যা ৬টায় অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ২০২২ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর সমাপ্ত প্রথম এবং ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হবে।

গত ৩০ জুন, ২০২২ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ এক শতাংশ নগদ লভ্যাংশ (উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ব্যতীত) দেয়ার ঘোষণা করেছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৬৫ পয়সা (লোকসান) এবং ৩০ জুন, ২০২২ শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১১ টাকা ৭২ পয়সা। আর এই হিসাববছরে শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে ৫৭ পয়সা (ঘাটতি)। ঘোষিত লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের সম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য আগামী ৩০ মার্চ বেলা ২টায় অনলাইনে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে সর্বশেষ ২০২০ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরে নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের পাঁচ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫১ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি নেট সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৯৬ পয়সা। এর আগে ২০১৯ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরে নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের সাড়ে ১২ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে। আলোচিত সময়ে ইপিএস হয়েছে এক টাকা ৬৬ পয়সা এবং এনএভি দাঁড়িয়েছে ১৫ টাকা ১৩ পয়সা। আর মোট মুনাফা করেছে ৯ কোটি ৪০ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

কোম্পানিটি ২০১৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। কোম্পানির ১৭০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৬৭ কোটি আট লাখ ৫০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ২২ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। কোম্পানির মোট ছয় কোটি ৭০ লাখ ৮৪ হাজার ৭৮১ শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে ৩০ দশমিক ০১ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ৩০ দশমিক ৫১ শতাংশ এবং বাকি ৩৯ দশমিক ৪৮ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে।

Leave a Reply