আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-সেরা ফার্নিচার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান নাভানা

আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-সেরা ফার্নিচার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান নাভানা

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার ২৭তম আসরে সেরা ফার্নিচার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে পুরস্কার পেয়েছে নাভানা ফার্নিচার লিমিটেড। মাসব্যাপী চলা এই মেলা গত ৩১ জানুয়ারি রাত ১০টায় আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হয়।

আকর্ষণীয় প্যাভিলিয়ন, নতুন পণ্য ও সেবার মাধ্যমে গ্রাহকদের প্রশংসা অর্জন এবং মেলার সার্বিক সাফল্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় নাভানা ফার্নিচারকে পুরস্কৃত করেছে মেলা আয়োজনকারী সংস্থা বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতীক)। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ও এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহসভাপতি মোস্তফা আহমেদ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ অতিরিক্ত সচিব মো. হাফিজুর রহমান। স্বাগত বক্তব্য দেন রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান এ এইচ এম আহসান।

নাভানা গ্রুপের একটি অঙ্গপ্রতিষ্ঠান নাভানা ফার্নিচার। ফার্নিচারের নকশায় নতুনত্ব ও গ্রাহকদের নান্দনিক আসবাবপত্র সরবরাহের লক্ষ্যে ২০০২ সালে যাত্রা শুরু করেছে ব্র্যান্ডটি। আধুনিক জীবনযাপনের সঙ্গে মিলিয়ে দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহার্য পণ্যের নকশায় নতুনত্ব নিয়ে আসাই নাভানা ফার্নিচারের মূল লক্ষ্য।

নাভানা ফার্নিচারের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা ইয়ামিন রিখু বলেন, ‘নান্দনিক ডিজাইনের প্যাভিলিয়ন তৈরির পাশাপাশি মেলায় সর্বশেষ ডিজাইনের এবং উদ্ভাবনী নতুন নতুন পণ্য এনেছিল নাভানা ফার্নিচার। এ কারণে ক্রেতা সমাগম ছিল ব্যাপক। বিক্রিও হয়েছে আশাতীত। সেরা ফার্নিচার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে পুরস্কার প্রাপ্তিতে গ্রাহকদের প্রতি নাভানার দায়িত্ব আরও বহুগুণ বেড়ে গেল।’

তিনি আরও বলেন, বাণিজ্য মেলা সব প্রতিষ্ঠানের নতুন পণ্য ও সেবা প্রদর্শনের একটি আদর্শ স্থান। ক্রেতারা বাণিজ্য মেলায় আসেন নতুন নতুন পণ্য ও সেবার খোঁজে। সেদিক থেকে নাভানা এবার ছিল ব্যতিক্রম। নতুন পণ্যের সমাহারের কারণে নাভানার প্যাভিলিয়ন ছিল মেলার অন্যতম সেরা আকর্ষণ।

গত বছরও বাণিজ্য মেলায় সেরা স্টল ডিজাইনের পুরস্কার পায় নাভানা ফার্নিচার। পরপর দুবার সেরা পুরস্কার প্রাপ্তি উপলক্ষে এবং ক্রেতাদের চাহিদা ও ক্রয়-সুবিধার্থে নাভানা ফার্নিচার তাদের চলমান নতুন বছরের ক্যাম্পেইনের মেয়াদ আরও ১৫ দিন বাড়িয়েছে।

Leave a Reply