নিজের নামে টিকিট ছাড়া ট্রেনে চড়া যাবে না

নিজের নামে টিকিট ছাড়া ট্রেনে চড়া যাবে না

এবার আরেকজনের নামে কেনা টিকিটে ট্রেনে চড়া যাবে না। ট্রেনে চড়তে হলে অবশ্যই নিজের নামে টিকিট কাটতে হবে। টিকিট কালোবাজারি বন্ধে নতুন এই পদ্ধতি চালু করা হচ্ছে।

বুধবার (১ মার্চ) সকাল সাড়ে ৮টায় কমলাপুর স্টেশনে নতুন পদ্ধতির টিকিটিং ব্যবস্থার উদ্বোধন করবেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন।

রেলমন্ত্রী বলেন, রেজিস্ট্রেশন ছাড়া কোনো যাত্রী টিকিট পাবেন না। প্রাথমিকভাবে আন্তঃনগর এটি বাস্তবায়ন হচ্ছে। পরবর্তী সময়ে এটি বিস্তৃত করা হবে। ‘টিকিট যার, ভ্রমণ তার’- এ স্লোগানে যাত্রীরা যেন কিছু সুবিধা পেতে পারে এবং টিকিটপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে যেই অভিযোগগুলো পাওয়া যেত, আমরা নিজেরাও বিভিন্ন সময় তা সমাধানের চেষ্টা করেছি। বিনা টিকিটেও ভ্রমণ করেছে। টিকিট পাওয়া যেন আরও সহজলভ্য করা যায়। কোনো রকম অভিযোগ ছাড়াই যাত্রীদের সেবা পৌঁছে দেওয়া যেতে পারে সেই চেষ্টা করছি এবং এটিই শেষ নয়।

টিকিট সংগ্রহ ও ফেরত দেওয়ার বিষয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, ‘অনলাইনে যেকোনো জায়গা থেকে যাত্রী টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। অনলাইনের মাধ্যমে বাড়িতে বসেই টিকিটের টাকা ফেরতও নিতে পারবেন, কাউন্টারে আসতে হবে না। গত ১৫ দিনে চার লাখ মানুষ অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করেছেন।’

তিনি বলেন, ‘৫০ শতাংশ অনলাইনে এবং ৫০ শতাংশ কাউন্টার থেকে টিকিট দেওয়া হবে। কিন্তু কোনোক্রমে রেজিস্ট্রেশন ছাড়া টিকিট পাওয়া যাবে না। আগে টিকিট হলেই একজন যাত্রী ভ্রমণ করতে পারতেন, এখন আপনার টিকিটে আপনাকে ভ্রমণ করতে হবে। টিকিট থাকলেই ভ্রমণ করা যাবে না। এর আগে সুযোগ ছিল পাঁচটা বা দশটা টিকিট কেটে কালোবাজারি করে বিক্রি করা যেত। অন্যের টিকিট নিয়েই অনেকে ভ্রমণ করতে পারতেন। এখন সেটা পারবেন না। আর বিনা টিকিটে কেউ ভ্রমণ করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

জানা গেছে, নতুন পদ্ধতিতে যাত্রীকে নিজের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) দিয়ে আগে অনলাইনে নিবন্ধন করে তারপর টিকিট কিনতে হবে। নিবন্ধন না করলে কাউন্টার থেকেও টিকিট পাওয়া যাবে না। নতুন পদ্ধতিতে নিবন্ধিত যাত্রী কাউন্টর বা অনলাইন থেকে একসঙ্গে ৪টি টিকিট কিনতে পারবেন। তবে যার নামে টিকিট কেনা হবে, তাকে অবশ্যই ট্রেনে থাকতে হবে।

এ বিষয়ে রেলের অতিরিক্ত মহাপরিচালক সরদার সাহাদাত আলী বলেন, যার নাম টিকিটে থাকবে, তাকে অবশ্যই ট্রেনে থাকতে হবে। অন্যথায় চারজনকেই বিনা টিকিটের যাত্রী গণ্য করে জরিমানা করা হবে। এ ছাড়া টিকিটে থাকা নাম থাকা যাত্রীকে ভ্রমণের সময় এনআইডি বা ছবিযুক্ত পরিচয়পত্রের ফটোকপি সঙ্গে রাখতে হবে। ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সীরা বাবা অথবা মায়ের এনআইডি দিয়ে টিকিট কিনতে পারবে। তাদেরকে জন্ম নিবন্ধনের ফটোকপি সঙ্গে রাখতে হবে।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি নিবন্ধন শুরু হওয়ার পর মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত অনলাইনে তিন লাখ ২৪ হাজার ১৭ জন ও মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে সাত হাজার ১৩ জন নিবন্ধন করেছেন। রেলের ওয়েবসাইট ও অ্যাপ ছাড়াও ইজ লিখে স্পেস দিয়ে এনআইডি নম্বর ও জন্মতারিখ দিয়ে ২৬৯৬৯ নম্বরে এসএমএস করে নিবন্ধন করা যাচ্ছে। বিদেশি নাগরিকরা পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে নিবন্ধন করতে পারবেন।

Leave a Reply