পুঁজিবাজারের টেকসই উন্নয়নে বাজেটে বিভিন্ন মেয়াদি পরিকল্পনা চান  সিএসই চেয়ারম্যান

পুঁজিবাজারের টেকসই উন্নয়নে বাজেটে বিভিন্ন মেয়াদি পরিকল্পনা চান  সিএসই চেয়ারম্যান

আগামী বাজেটে পুঁজি বাজারের গুণগত সম্প্রসারণ ও টেকসই উন্নয়নে যথাযথ কৌশল নির্ধারণে দিকনির্দেশনা প্রদানের প্রস্তাব দিয়েছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ কতৃপক্ষ। 

তারা বলেন, বর্তমান সরকারের কৌশলগত উন্নয়ন পরিকল্পনায় বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নিতকরন এবং ২০৪১ সালের একটি উন্নত রাস্ট্রে উন্নিতকরনের যে লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, তার সাথে সামঞ্জস্য রাখার জন্য একটি যথোপযুক্ত অর্থ বাজার কাঠামো তৈরি করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 

পুঁজিবাজারের উন্নয়নে বাজেটে স্বল্প ও মধ্য মেয়াদি পরিকল্পনা নির্ধারণেরও প্রস্তাব দিয়েছেন চট্টগ্রাম স্টক এক্সেচেঞ্জের চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম। তিনি ট্যাক্স জিডিপি অনুপাত বৃদ্ধি করতে গেলে তালিকাভুক্ত কোম্পানির সংখ্যা বৃদ্ধি, তালিকাভুক্ত কোম্পানির করহার হ্রাস, মূলধনী লাভকে কর অব্যাহতি প্রদান এবং লভ্যাংশ আয়কে করমুক্ত করার মাধ্যমে বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

রবিবার (২ জুন) দুপুরে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে প্রাক বাজেট সংবাদ সম্মেলনে এসব প্রস্তাবনার পাশাপাশি বেশ কিছু সুপারিশও তুলে ধরেন তিনি।

সিএসইর চেয়ারম্যান বলেন, জনসংখ্যার তুলনায় পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীর সংখ্যা খুবই কম। যা গত কয়েক বছর ধরে নিম্নমুখী ধারা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বাজারে প্রাতিষ্ঠানিক ও ব্যক্তি বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য লভ্যাংশের ওপর দ্বৈত কর প্রত্যাহার করা জরুরি।পাশাপাশি প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর মূলধনী লাভের ওপর কর প্রত্যাহার এবং এক্ষেত্রে নতুন করারোপ থেকে বিরত থাকতে হবে।

এ সময় সিএসই চেয়ারম্যান আরো বলেন, স্টক এক্সচেঞ্জের সুবিধার্থে বিভিন্ন কৌশল নেওয়া যেতে পারে। এর মধ্যে প্রচলিত অল্টারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ড এবং ছোট ক্যাপ বোর্ডে তালিকাভূক্তি উৎসাহিত করতে ৩ বছরের জন্য কর অব্যাহতি প্রদান করা যেতে পারে। এ ছাড়া কমোডিটি এবং ইকুইটি ডেরিভেটিভ সহজভাবে চালু করতে বিনিয়োগকৃত হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যারের ওপর সকল ধরনের কর প্রত্যাহার এবং সহজভাবে কমোডিটি এক্সচেঞ্জ প্রতিষ্ঠা করতে কমোডিটি এক্সচেঞ্জে পাঁচ বছরের জন্য কর অব্যাহতি প্রদান করা জরুরি।

ট্যাক্স জিডিপি অনুপাত বৃদ্ধি করতে গেলে তালিকাভুক্ত কোম্পানির সংখ্যা বৃদ্ধি, তালিকাভুক্ত কোম্পানির করহার হ্রাস, মূলধনী লাভকে কর অব্যাহতি প্রদান এবং লভ্যাংশ আয়কে করমুক্ত করার মাধ্যমে বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন আসিফ ইব্রাহিম।

সিএসই চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম বলেন,পুঁজিবাজারে দেশীয় ও বিদেশি প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ উৎসাহিত করার লক্ষ্যে ব্লু বন্ড এবং গ্রীন বন্ডকে সম্পূর্ণ কর অব্যহতিসহ কর রেয়াত প্রদান করা হলে বাংলাদেশের সমুদ্র ভিত্তিক বিনিয়োগ ব্যাপক অংশে বাড়ানো সম্ভব।

সিএসই পরিচালক মেজর এমদাদুল ইসলামের পরিচালনায় সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের এমডি সাইফুর রহমান মজুমদার। এ সময় সিএসই পরিচালক নকিব উদ্দিন খান এবং আক্তার পারভেজ হিরু উপস্থিত ছিলেন।  

সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের এমডি সাইফুর রহমান মজুমদার বলেন, দেশের করপোরেট ফিন্যান্সিংটা ব্যাংক ব্যবস্থার ওপর নির্ভরশীল।এর ফলে কিছু মিসম্যাচ দেখা যাচ্ছে। যদি ক্যাপিটাল মার্কেটকে একটা টেকসই অবকাঠামো দিতে না পারি তাহলে ব্যাংক ব্যবস্থার ওপর আমাদের নির্ভরশীলতা সেটা কমানো সম্ভব হবে না। আর সেখান থেকে সরে আসতে গেলে একটি শক্তিশালী বাজার কাঠামো দরকার। আর শক্তিশালী বাজার কাঠামো করতে গেলে ক্যাপিটাল মার্কেটের যে উইংগুলো আছে সেগুলো শক্তিশালী করতে হবে। ক্যাপিটাল মার্কেটের একটা যুতসই সম্প্রসারণ দরকার । আর সেই সম্প্রসারণের জন্য যে কৌশল সেটা বাজেট কাঠামোর মধ্যে নিতে হবে। 

বর্তমান পুঁজিবাজার ইকুইটি মার্কেট নির্ভর উল্লেখ করে এমডি বলেন, ইকুইটি মার্কেট নির্ভর বাজার হওয়ায় বাজারে যেমন অনাকাঙ্ক্ষিত অস্থিরতা দেখা যাচ্ছে, তেমনি এটি পুঁজিবাজার সম্প্রসারণের অন্তরায়। এই লক্ষ্যে কার্যকর কৌশলের মাধ্যমে অগ্রসর হওয়া প্রয়োজন। 

Leave a Reply